Breaking News

শালিখা নদীর বেড়িবাঁধের সামাজিক বনায়নের গাছ চুরির অভিযোগ

তালা প্রতিনিধিঃ খুলনার পাইকগাছা উপজেলার রাড়ুলী কলেজ থেকে তালা উপজেলার শালিখা খেয়াঘাট পর্যন্ত শালিখা নদীর বেড়িবাঁধের উপর রোপন করা সামাজিক বনায়নের গাছ চুরি ও জোর দখলের চেষ্টা চালানো হচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে। স্থানীয় দূর্বৃত্তচক্ররা প্রায় অর্ধ কোটি টাকার গাছগুলো প্রতিনিয়ত চুরি ও জোর দখলের চেষ্টা চালানোয় সামাজিক বনায়ন’র উপকারভোগী সদস্যরা দফায় দফায় মামলা করেও চুরি ও লুট রোধ করতে পারছেনা। বরং দূর্বৃত্তদের একের পর এক হামলা ও হুমকিতে উপকারভোগী সদস্যরা এখন আতংকের মধ্যে রয়েছে। এঘটনায় প্রতিকার পেতে ভুক্তভোগীরা বন ও পরিবেশ মন্ত্রী সহ সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন দপ্তরে অভিযোগ করেছেন।

রাড়ুলী সামাজিক বনায়নের উপকারভোগী আবুল হোসেন, হাসানুজ্জামান ও বদরুজ্জামান সহ ভুক্তভোগী সদস্যরা জানান, তালা ও পাকগাছা উপজেলার সীমানা দিয়ে প্রবাহিত শালিখা নদীর ধারে রাড়ুলী কলেজ থেকে শালিখা খেয়াঘাট থেকে পর্যন্ত ৫/৬ কিলোমিটার বেড়িবাঁধের উপর ২০১৫ সালে বাবলা সহ বিভিন্ন প্রজাতীর গাছ রোপন করা হয়। এই গাছ রোপনের জন্য সেসময় পাইকগাছা উপজেলা প্রশাসনের অনুমতি এবং প্রশাসনের পক্ষ থেকে বাবলার বীজ নেয়া হয়। এছাড়া গাছ রোপনের সকল নীতিমালা মেনে তালার খেশরা ও পাইকগাছার রাড়ুলী ইউনিয়নের ৪৫জন সদস্য বিধি মোতাবেক কার্যকরি কমিটি গঠন করেন। গঠিত কমিটির তত্বাবধানে সমিতির সদস্যরা সেময় লক্ষাধিক টাকা ব্যয় করে গাছের চারা ও বীজ রোপন করেন। পরবর্তীতে আরো ৩/৪ লক্ষ টাকা ব্যয় করে দীর্ঘ রক্ষনাবেক্ষনের ফলে গাছগুলোর বর্তমান মূল্য প্রায় অর্ধ কোটি টাকা।

সমিতির সদস্যরা ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, এই গাছ রোপনের সময় এলাকার কতিপয় ব্যক্তি বিরোধিতা শুরু করে এবং চুরি করে গাছের চারা ভেঙ্গে দিতে থাকে। কিন্তু গাছগুলো বড় হবার সাথে সাথে সেই তারাই এখন প্রতিনিয়ত গাছ ও গাছের ডাল চুরি করে কর্তন করে নিচ্ছে। এবিষয়ে বাঁধা দিলেই তারা হুমকি প্রদান করে। এই নিয়ে বিরোধ সৃষ্টি হলে রোপন করা গাছগুলি দূর্বৃত্তরা জোর দখলের ষড়যন্ত্র শুরু করে। গাছ ও ডাল চুরির বিষয়ে পাইকগাছা থানায় সামাজিক বনায়ন কমিটির সভাপতি হাসানুজ্জামান বাদী হয়ে তালার মুড়াগাছা গ্রমের মীর সুন্দর আলী, মীর মিনার, মীর হাসানুজ্জামান হাসান ও মীর নুরুল সহ ৮/১০ দূর্বৃত্তদের বিরুদ্ধে একটি মামলা (৪১/১৯) করলে একাধিক আসামী গ্রেফতার হন। এর কিছুদিন পর দূর্বৃত্তরা জামিনে বাড়ি এসে আবারও গাছ ও ডাল লুটপাটের চেষ্টা শুরু করলে পাইকগাছা বিজ্ঞ আদালতে সামাজিক বনায়নের পক্ষ থেকে আরও একটি মামলা হয়।

এসব মামলা সহ পাইকগাছা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার দপ্তরে প্রতিকার পেতে সামাজিক বনায়নের সদস্যরা অভিযোগ করেন। কিন্তু তারপরও দূর্বৃত্তরা প্রতিনিয়ত সামাজিক বনায়নের গাছ ও ডাল চুরি সহ সকল গাছ জোর দখলে নেয়ার চেষ্টা চালাচ্ছে। তাদের এসব অপকর্মে বাঁধা দিতে গেলেই পাইকগাছা থানার কাটিপাড়া গ্রামের আনন্দ মোহন দাশ, সুভাষ দাশ, নারায়ন দাশ, জয়নাল গাজী, তালার মুড়াগাছা গ্রমের মীর সুন্দর আলী, মীর মিনার, মীর হাসানুজ্জামান ও মীর নুরুল সহ দূর্বৃত্তরা প্রতিনিয়ত সামাজিক বনায়ন কমিটির সদস্যদের হুমকি প্রদান সহ হামলা চালানোয় নিরিহ সদস্যরা আতংকের মাঝে রয়েছে। এবিষয়ে প্রতিকার পেতে গাছ রোপনকারী নিরিহ ব্যক্তিরা বন ও পরিবেশ মন্ত্রী সহ সংশ্লিষ্ট উর্দ্ধতন প্রশাসন’র হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

দলিত ভয়েস//হাবিবা

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *